SHARE

বাংলাদেশ তৃতীয় বিশ্বের একটি গরীব দেশ। যদিও এখন নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে স্বীকৃত আমাদের দেশ এখন কিন্তু তারপরও লক্ষ লক্ষ তরুণ বেকার অথবা সামান্য আয়ের কোন কাজ করতে বাধ্য হচ্ছে। বিশেষ করে যারা ব্যবসা করতে চায় তাদের জন্য পুজির অভাব খুব বড় একটি সমস্যা।

অনেকেই আমাকে বলে যে তার পুঁজি নেই তাই তাকে দিয়ে কিছু হবে না। পুঁজি বলতে টাকাকে বুঝি আমরা। জীবনে যে কোন কিছু করতে হলে টাকা লাগে। তাই জীবনে অবশ্যই টাকার দরকার, এতে কোন দ্বিমত নেই। কিন্তু তার মানে এই নয় যে টাকা না থাকলে আপনার সব কিছু শেষ হয়ে যাবে। কিন্তু অনেকেই তা মনে করে এবং অন থেকে বিশ্বাস করে। ফলে তারা এক সময় মনের শক্তি হারিয়ে ফেলে এবং ভাল কিছু করতে আগ্রহ পায় না। এতে করে তাদের নিজেদের যেমন ক্ষতি হয় তেমনি সমাজেরও ক্ষতি।

আমরা আসলে ভুলে যাই যে কোন কাজে সফল হতে হলে আপনাকে মন দিয়ে চেষ্টা করতে হবে। মন দেয়া এবং চেষ্টা করা দুটিই দরকার। আর দরকার নিজের শক্তি খুজে বের করা। এই শক্তি হতে পারে সবচেয়ে বড় পুঁজি। আমার এ ধরনের কথার সঙ্গে অনেকে একমত হবেন না কিন্তু আমার মনে হয় যে আমাদের সমাজে অনেকেই কঠিন পরিশ্রম করে সামান্য অবস্থা থেকে অনেক ভাল করেছেন জীবনে।

আপনার জন্ম যদি ধনী পরিবারে না হয় তাহলে বাংলাদেশে প্রথম থেকেই আপনাকে অনেক সংগ্রাম করতে হবে, কষ্ট করতে হবে। অনেকবছর ধরে চাকুরি বা ব্যবসা করার পর তারপর একটা অংকের টাকা সঞ্চয় করতে পারবেন। তাই সবার আগে চিন্তা করুন আপনার শক্তি কোন দিকে। আপনি লেখাপড়ায় ভাল সেটি আপনার পুঁজি, আপনি বিক্রি করতে পারেন সেটি আপনার পুঁজি হতে পারে, টেকনিক্যাল দিকে আপনার আগ্রহ আছে এটিও পুঁজি হতে পারে।

আপনার শক্তি খুজে বের করা খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। তা করা খুব কঠিন নয় কারণ আপনি নিজেকে চেনেন। আপনার আগ্রহ কি আপনি জানেন, আপনার কি করতে ভাল লাগে এবং কি করতে পারেন এগুলো অজানা থাকার কথা নয়। একটু চিন্তা করলেই তা বুঝতে পারবেন। এর পর যা দরকার তাহল আপনার শক্তিকে শানিত করা অনুশীলনের মাধ্যমে।

শক্তিকে পুঁজি হিসেবে মনে করা আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। মন থেকে এটি মনে করতে হবে। ধরা যাক আপনার কাছে কম্পিউটার, ফ্রিল্যান্সিং অথবা প্রাইভেট ইউনিভার্সিটিতে পড়ার মত টাকা নেই, ব্যবসা শুরু করার মত টাকা নেই। এর মানে যা করতে চান তার পুঁজি আপনার কাছে নেই। কিন্তু যদি আপনার আগ্রহ থাকে তাহলে আপনি একটা উপায় খুজে পাবেন। বিকল্প কিছু একটা পেয়ে যাবেন। এজন্য দরকার লেগে থাকার এবং কঠিন পরিশ্রম করার মানসিকতা। এভাবে চলতে চলতে এক সময় দেখবেন যে টাকার থেকেও বড় পুঁজি চলে এসেছে আপনার কাছে।

ই-ক্যাব নিয়ে গত ১ বছর ধরে আমি চেষ্টা চালিয়ে গেছি এবং সেখানে টাকা পয়সা আমার ছিল না। আমি লিখতে পারি এবং মানুষের সঙ্গে মিশতে পারি- এ দুটো ছিল আমার সবচেয়ে বড় পুঁজি। ফলে ফেইসবুক গ্রুপ, ব্লগ, স্কাইপ আড্ডা এগুলোর উপর ভর করে এগিয়েছি। আরেকটা জিনিশ ছিল আমার পুঁজি- প্রতিদিন প্রতি ঘণ্টায় চেষ্টা করে যাওয়া লেগে থাকা। এর ফলে ই-ক্যাব যেমন অনেক এগিয়েছে আমি নিজেও এগিয়েছি। এক বছরে প্রায় ৩০০ এর মত কোম্পানি যোগ দিয়েছে ই-ক্যাবের সঙ্গে আর এর সভাপতি হিসেবে আমি আজ অনেকের কাছে একজন পরিচিত ব্যক্তি।

তাই নিজের শক্তিশালি দিক খুজে বের করার চেষ্টা করুন। তারপর সেই শক্তিকে কাজে লাগান। এক বছরে দেখবেন অনেক এগিয়ে গেছেন। তবে একটি জিনিশকে আপনার পুঁজি করতেই হবে- সততা। এটি না থাকলে জীবনে ভাল করতে পারবেন না। পারলেও সুখী হবেন না।

আমি বলছি না যে টাকার দরকার নেই। টাকার অবশ্যই দরকার আছে এবং যে কোন ব্যবসা করতে হলে পুঁজি লাগবেই। কিন্তু এখন আপনার কাছে টাকা নেই বলে যদি আপনি উদ্যম হারিয়ে ফেলেন তাহলে জীবনে ভাল কিছু করা কঠিন হবে। টাকা না থাকলে তো আপনি বানাতে পারবেন না বা কেউ এসে আপনাকে দিয়ে যাবে না। কিন্তু যা আপনি বানাতে পারেন তাহল নিজের শক্তিশালী দিককে কাজে লাগিয়ে টাকা আয়ের চেষ্টা করা।

Comments

comments