ফোর ফিঙ্গার পিয়ানিস্টঃ মা ও মেয়ের অসম্ভবকে সম্ভব করার যুদ্ধ

ফোর ফিঙ্গার পিয়ানিস্টঃ মা ও মেয়ের অসম্ভবকে সম্ভব করার যুদ্ধ

966
0
SHARE

লেখকঃ কামরুল হাসান (শাওন)

তৃতীয় বিশ্বের দেশে একজন শিশু যদি প্রতিবন্ধি হয়ে জন্মায় তাহলে তার কি পরিণতি হয়? সেই শিশুটিকে মৃত্যুর আগে পর্যন্ত পরিবারের অন্য সদস্যদের করুণার উপর বেঁচে থাকতে হয় এবং তাকে পরিবারের বোঝা ভাবা হয়। হি আহ লি (He Ah Lee) এর অবস্থা এর থেকে ভাল কিছু হত না যদি তার মা তাকে সব ধরণের সাহায্য ও সহযোগিতা না করত।

হি আহ লি ১৯৮৫ সালে দক্ষিণ কোরিয়ার সিউলে জন্মগ্রহণ করেন। তার জন্ম আর দশজন শিশুর মত স্বাভাবিক নয়। তার প্রতিটি হাতে দুইটি করে মোট চারটি আঙ্গুল। এবং তার পা হাঁটুতে গিয়ে শেষ হয়েছে। ডাক্তাররা আশা করেনি সে বাঁচবে। গুরুতর শারীরিক ক্রুটি নিয়ে জন্মগ্রহণ করায় হাসপাতাল থেকে জানানো হয় যে সান (Sun- লি’র মা) তার শিশুকে বাসায় ঠিক মত দেখাশুনা করতে পারবে না। শুধু তাই না তার প্রতিবেশীরা চেয়েছিল সান যেন তার সন্তানকে অন্য কোন দেশে দত্তক দেয়। কিন্তু তিনি তার কিছুই করেননি।

মা ও মেয়ের এই যাত্রা মোটেও সহজ ছিল না। লি ছয় বছর বয়সে পিয়ানো শেখা শুরু করে। সে সময় তার চারটি আঙ্গুল খুবই দুর্বল ছিল। সে এমনকি পেন্সিলও ধরতে পারত না। লিকে পিয়ানো শেখানোর পিছনে তার মার একটা যুক্তি কাজ করছিল। তার মা ভেবেছিল পিয়ানো বাজালে তার কব্জি শক্ত হবে। এটা কাজ করল। কিন্তু আরও যা হল লি কল পাওয়া শুরু করল। এখন সে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ভ্রমন করে এবং দর্শকদের জন্য পিয়ানো বাজায়। সে যেসব সূর তোলে তা একজন সামর্থ্যবান মানুষের পক্ষেও কঠিন।

লি’র সাফল্য এত সহজে ধরা দেয়নি। ছয় মাস কোন পিয়ানো স্কুল তাকে ভর্তি নিচ্ছিল না। অবশেষে একজন শিক্ষক তাকে পিয়ানো বাজানো শেখাতে রাজি হয় কিন্তু একসময় তিনি নিরুৎসাহিত হয়ে কাজটি ছেড়ে দিতে চেয়েছিলেন। পরবর্তী তিন মাস ছিল মা ও মেয়ের ভিতর ইচ্ছাশক্তির প্রতিযোগিতা বা লড়াই। লি’র মা একসময় হতাশ হয়ে তার মেয়েকে মেঝেতে ফেলে দেয়। লি মেঝে থেকে উঠে পিয়ানো বেঞ্চে গিয়ে বসে এবং এতদিন ধরে যেই সূরটা শিখানোর চেষ্টা করা হচ্ছিল তা বাজায়। এটা ছিল লি’র জীবনের টার্নিং পয়েন্ট। এক বছর পর লি কিন্ডারগার্টেনের পিয়ানো কনসার্টে সর্বোচ্চ পুরস্কার পান। লি সাত বছর বয়সে কোরিয়ার ১৯তম ন্যাশনাল হ্যান্ডিক্যাপ কনকোয়েস্ট কনটেস্ট জেতে এবং কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট তার হাতে পুরস্কার তুলে দেয়।

লি তার জীবনে অনেক পুরস্কার জিতেছে এবং বিশ্বের ২০০টিরও বেশী দেশে কনসার্টে পিয়ানো বাজিয়েছে। তার প্রথম অ্যালবাম “হি-আহ, এ পিয়ানিস্ট উইথ ফোর ফিঙ্গারস” ২০০৮ সালের জুনে মুক্তি পায়। পিয়ানো আয়ত্ত করার জন্য তাকে চ্যালেঞ্জ করার জন্য লি তার মাকে এই অ্যালবামে সম্মান জানায়। লি জানায় যে যদিও তার প্রশিক্ষণ ছিল কঠিন, সময় যাওয়ার সাথে সাথে পিয়ানো তার অনুপ্রেরণার উৎস এবং ভাল বন্ধু হয়।

হি আহ লি’র উপর নির্মিত ভিডও লিংক নিচে দেওয়া হল-
https://www.youtube.com/watch?v=2FSnalrPYpc

তথ্য সূত্র- http://www.inspire21.com/stories/truestories/4-FingerPianist

Comments

comments